অস্থায়ী বসতি | Semi-permanent Settlement

অস্থায়ী বসতি [Semi-permanent Settlement] বলতে কোন জনগোষ্ঠীর স্বল্পকাল স্থায়ী বসবাসের স্থানকে বুঝায়। ক্ষণস্থায়ী বসতির মত অস্থায়ী বসতির অধিবাসীগণ জায়গা বদল করে। তবে এদের জায়গা বদল ক্ষণস্থায়ী বসতির চেয়ে দীর্ঘ মেয়াদী হয়ে থাকে। এরা ৩ থেকে ৪ বছর পর পর জায়গা বদল করে। এ ধরণের বসতিকে অস্থায়ী বসতি বলা হয়।

অস্থায়ী বসতির লোকজন একই সাথে শিকারী ও কৃষিজীবী হয়ে থাকে। এরা বনের গাছপালা পুড়িয়ে চাষের জমি গড়ে তোলে। প্রায় ৩ থেকে ৪ বছর একই জায়গায় চাষ করে। পরে অন্য জায়গায় চলে যায় এবং সেখানে আবার নতুন করে বন পুড়িয়ে চাষের জমি প্রস্তুত করে। এদের স্থান পরিবর্তনের মূল কারণ হল মাটির উর্বরতা। একই জমিতে লাঙ্গলবিহীন চাষ করা হলে, খুবই স্বল্প সময়ে জমির উর্বরতা হ্রাস পায়। ফসলের ফলন কমে যায় বলে এক রকম বাধ্য হয়েই এদেরকে অন্য জায়গায় চলে যেতে হয়।

বাংলাদেশের পার্বত্য চট্টগ্রামে এধরনের অস্থায়ী বসতির স্থানান্তর কৃষিজীবীর সন্ধান পাওয়া যায়। স্থানীয়ভাবে এদের চাষ পদ্ধতির নাম জুম চাষ [Jhum Cultivation] বা স্থানান্তরিত কৃষি। অস্থায়ী বসতিতে বসবাসকারী এ শিকারী ও কৃষিজীবী জনগোষ্ঠী অপেক্ষাকৃত বৃষ্টি প্রধান অঞ্চলে বেশি দেখা যায়। আফ্রিকা, মধ্য আমেরিকা, দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া, হিমালয় সংলগ্ন ভারত ও নেপালের পাহাড়িয়াঞ্চলে এবং বনাঞ্চলে এ ধরনের বসতি দেখা যায়। অস্থায়ী বসতিগুলো অপেক্ষাকৃত চরমভাবাপন্নাঞ্চলেও দেখা যায়। মরু অঞ্চলের বেদুঈন যাযাবর ও মেরু অঞ্চলের এস্কিমো এর উৎকৃষ্ট উদাহরণ। [সংকলিত]


Image source:  James Light Photography


 

Add a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *