অ্যাজটেক সভ্যতা | Aztec Civilization

মধ্য আমেরিকার অন‌্যতম প্রাচীন সভ‌্যতার নাম হল মায়া। এ মায়া সভ্যতার অবস্থান থেকে প্রায় ৮০০ কিলোমিটার পশ্চিমে অ্যাজটেক বাসীগণ এক নতুন সভ্যতা গড়ে তুলে। বর্তমান মেক্সিকো সিটি যেখানে অবস্থিত, সেখানেই প্রাচীন অ্যাজটেক সভ‌্যতার যাত্রা শুরু হয়। এ সভ‌্যতাটির অবস্থান সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ২,১০০ মিটার উঁচুতে। অনুকূল জলবায়ু এবং চাষাবাদের উপযোগী জমি অ্যাজটেক সভ্যতার প্রসার ঘটাতে সহায়তা করে। অ্যাজটেক সভ্যতার মূল নগরটি জলাশয়বেষ্টিত এলাকায় অবস্থিত। এ সভ‌্যতার লোকজন ছোট বড় বিভিন্ন আকারের বাঁধ দিয়ে কৃষি কাজ সম্পাদন করত। এ বাঁধগুলো পানি সংরক্ষণের কাজে ব‌্যবহৃত হত। পাশাপাশি এ বাঁধগুলো চলাচলের জন্য পথ হিসেবেও ব্যবহৃত হত। সারা বছর চলাচলের উপযোগী রাখার জন‌্য বাঁধের উপরিপৃষ্ঠে পাথর বিছিয়ে রাখা হয়েছিল। এ সভ‌্যতার এলাকায় অবস্থিত খাল ও বিলগুলোতে নৌকা চলাচল করত। সভ্যতার শেষের দিকে এরা নিজেদের মধ্যে কলহে জড়িয়ে পড়ে এবং পরস্পর যুদ্ধে লিপ্ত হয়। তবে, স্পেনীয়দের আক্রমণে এ অপূর্ব ও সৃজনশীল জনগোষ্ঠীর সভ‌্যতাটির পতন ঘটে। অ্যাজটেক বাসীগণ উন্নত সংস্কৃতির ধারক হিসেবে প্রায় ৪৫০ বছর তাদের সভ‌্যতাটি টিকিয়ে রাখতে পেরেছিল। 

মনে করা হয় যে, অ্যাজটেক বাসীগণ মধ্য আমেরিকার স্থানীয় জনগোষ্ঠী নয়। এরা উত্তর থেকে আগত একটি সংগ্রাহী জীবিকার জনগোষ্ঠী ছিল। কিন্তু খ্রিস্টীয় ১৩ শতাব্দীতে এরা মেক্সিকোর জলাশয় অঞ্চলের ১টি দ্বীপে আধিপত্য বিস্তার করে। এরপরে ধারাবাহিকভাবে এ অঞ্চলে বসবাস করতে শুরু করে। টিনোচ [Tenoch] হলেন অ্যাজটেকদের প্রথম রাজা। অ্যাজটেকদের রাজা বা শাসকগণ প্রথম থেকেই স্থানীয় জনগোষ্ঠীকে চাপের মধ‌্যে রাখে এবং আগ্রাসী মনোভাব নিয়ে শাসন কাজ পরিচালনা করে। শাসন সুসংহত করার জন‌্য পরবর্তীতে স্থানীয় প্রভাবশালী নেতাদের প্রশাসনের সাথে অঙ্গীভূত করা হয়। অ্যাজটেকের শাসকগণ অত্যন্ত স্বেচ্ছাচারী ছিল বলে জানা যায়। রাজধানী টেনোচিটিলান [Tenochtitlan] ছিল অ্যাজটেক সাম্রাজ্যের প্রধান প্রশাসনিক ও ধর্মীয় কেন্দ্র। সাম্রাজ্যের নিরাপত্তা নিশ্চিতের জন‌্য এদের নিয়মিত সৈন্যবাহিনী ছিল। এ সৈন্যবাহিনীর সদস্যগণ অ‌্যাজটেক সমাজে বিশেষ মর্যাদা পেত। নিরাপত্তার কাজ করতে গিয়ে এরা প্রায়ই যুদ্ধে জড়িয়ে পড়ত। কোন কোন সেনা অভিযানের মাধ্যমে যুদ্ধবন্দী নিয়ে আসা হত। দেবতাকে তুষ্ট করতে যুদ্ধবন্দীদের বলি (sacrifice) দেয়া হত। কখনও কখনও দৈনিক ২০,০০০ জনকে বলি দেয়া হয়েছে বলে জানা যায়। রাজার সাথে স্থানীয় অধিবাসীদের কোন যোগাযোগ বা সম্পর্ক ছিল না। ফলে, প্রজার সাথে রাজার এক বিরাট ব্যবধান সৃষ্টি হয়। যা রাজার প্রতি প্রজাদের ঘৃণার জন্ম দেয়। পরবর্তীকালে ইউরোপ থেকে আগত স্পেনীয়দের অ্যাজটেক আক্রমণকালে স্থানীয় জনসাধারণ পথ দেখিয়ে দেয়। যার ফল স্বরূপ, অ্যাজটেকদের সর্বনাশা পরিণতি ডেকে আনে। [সংকলিত]


image source: sites.google.com/a/students.chccs.k12.nc.us/the-aztec-civilization/architecture


 

Add a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *