ক্ষুদ্র স্কেলের মানচিত্র এবং বৃহৎ স্কেলের মানচিত্র

উপসাগর

ক্ষুদ্র স্কেলের মানচিত্র [Small Scale Map] বলতে সাধারণত এমন সব মানচিত্রকে বুঝায়, যে সব মানচিত্রের ছোট পরিসরে বিশাল আয়তনের অঞ্চল বা দেশকে প্রদর্শন করা হয়। অর্থাৎ এ ধরনের মানচিত্রে বিশাল আয়তনের কোন অঞ্চল কিংবা গোটা পৃথিবীকে মানচিত্রে প্রদর্শন করা হয়। এরূপ প্রদর্শনকালে মানচিত্রটির স্কেলের লব রাশির মান, হর রাশির মানের তুলনায় খুব ছোট রাখা হয়। যেমন- ১ : ৬৩,৩৬০,০০০ বা ১ ইঞ্চি : ৬৩,৩৬০,০০০ ইঞ্চি, এর মানে হল, ১ ইঞ্চি = ১০০০ মাইল। এখানে, বাস্তবে কোন অঞ্চল বা এলাকার দূরত্বগত পরিমাপ ১০০০ মাইল (৬৩,৩৬০,০০০ ইঞ্চি) এবং তা মানচিত্রে ১ ইঞ্চিতে প্রদর্শন করা হয়। এরূপ মানবিশিষ্ট স্কেল দিয়ে বিশাল আয়তনের অঞ্চলকে ছোট পরিসরে মানচিত্রে প্রদর্শন করা হয়। তাই এ ধরনের মানচিত্রকে ক্ষুদ্র স্কেলের মানচিত্র বলা হয়। সাধারণত গোটা পৃথিবী, দেশ, কোন অঞ্চল বা দেশের বিষয়ভিত্তিক ভূচিত্রাবলি, প্রভৃতি প্রদর্শনে ক্ষুদ্র স্কেলের মানচিত্র ব্যবহার করা হয়ে থাকে।

বৃহৎ স্কেলের মানচিত্র

বৃহৎ স্কেলের মানচিত্র [Large Scale Map] বলতে সাধারণত এমন সব মানচিত্রকে বুঝায়, যে সব মানচিত্রে কোন নির্দিষ্ট পরিসর বা স্থানের দূরত্ব বড় করে দেখানো হয়। অর্থাৎ এ ধরনের মানচিত্রে কোন ছোট পরিসর কিংবা এলাকার মানচিত্রে স্থানের দূরত্ব বড় করে দেখানো হয়। এরূপ প্রদর্শনকালে মানচিত্রটির স্কেলের লব রাশির মানও বড় রাখা হয়। যেমন- ১৬ : ১ বা ১৬ ইঞ্চি : ৬৩,৩৬০ ইঞ্চি, এর মানে হল, ১৬ ইঞ্চি = ১ মাইল। এখানে, বাস্তবে কোন এলাকার দূরত্বগত পরিমাপ ১ মাইল (৬৩,৩৬০ ইঞ্চি) এবং তা মানচিত্রে ১৬ ইঞ্চিতে প্রদর্শন করা হয়। এরূপ মানবিশিষ্ট স্কেল দিয়ে কোন এলাকাকে বড় এবং বিস্তৃত পরিসরে মানচিত্রে প্রদর্শন করা হয়। তাই এ ধরনের মানচিত্রকে বৃহৎ স্কেলের মানচিত্র বলা হয়। সাধারণত বাংলাদেশের মৌজা, গ্রাম, ইউনিয়ন, এলাকার বিষয়ভিত্তিক ভূচিত্রাবলি, প্রভৃতি প্রদর্শনে বৃহৎ স্কেলের মানচিত্র ব্যবহার করা হয়ে থাকে। [মোঃ শাহীন আলম]


Small Scale Map ‍and Large Scale Map


 

Add a Comment

Your email address will not be published.