নীল নদের দান: প্রাচীন মিশরীয় সভ্যতা


সুপ্রাচীনকাল হতে নীল নদ মিশরের জীবন জীবিকার উপর মূল ভূমিকা পালন করে। নীল নদের তীরের উর্বর সমতল ভূমি এ অঞ্চলের অধিবাসীদের স্থায়ী কৃষি অর্থনীতি ও কেন্দ্রীভূত সমাজ গঠনে সাহায্য করে। শিকারী ও সংগ্রাহক মানুষ মধ্য প্লাইস্টোসিন যুগের শেষ ভাগে (প্রায় বার লক্ষ বছর আগে) এ অঞ্চলে বসবাস করতে শুরু করে। পরবর্তী প্যালিওলিথিক যুগ থেকে উত্তর আফ্রিকার শুষ্ক জলবায়ু আরও উষ্ণ ও শুষ্ক হতে শুরু করে। যার ফলে এ অঞ্চলের মানুষ নীল নদের উপত্যকায় ঘন জনবসতি গড়ে তুলতে থাকে। খ্রিস্টপূর্ব ৩১৫০ – ৫০ অব্দ সময়ব্যাপীর এ প্রাচীন সভ্যতা সম্পর্কে নিম্নে সংক্ষেপে তুলে ধরা হল:
১. প্রাচীন মিশরীয় সভ্যতা গড়ে উঠেছিল- নীল নদের তীরে।
২. ১২ মাসে বছর, ৩০ দিনে মাস এ গণনারীতি- মিশরীয়দের দ্বারা সূচিত।
৩. ৩৬৫ দিনে বছর গণনা শুরু করে- মিশরীয়রা।
৪. প্রাচীন মিশরীয়রা তাদের ভাব প্রকাশ করত- হায়ারোগ্লিফিক বর্ণ দিয়ে।
৫. প্রথম পর্যায়ে মিশরীয়দের লিপি ছিল- চিত্রভিত্তিক।


৬. প্রাচীন মিশরের ফারাও রাজা তুতেনখানের সমাধি আবিষ্কৃত হয়- ১৯২২ সালে।
৭. ‘মিশরকে নীল নদের দান’ বলে অভিহিত করেছেন ইতিহাসের জনক- হেরোডোটাস।
৮. ইতিহাসের শ্রেষ্ঠ নির্মাতা বলা হত- মিশরীয়দেরকে।
৯. ক্লিওপেট্রা ছিলেন- মিশরের রানী।
১০. পৃথিবীর সবচেয়ে পুরাতন কীর্তিস্তম্ভ মিশরের- পিরামিড। [সংকলিত]


Ancient Egypt Civilization


BM-100FX USB Powered Condenser Studio Recording Microphone with Noise Cancel and Echo Effect 107547
BM-100FX USB Powered Condenser Studio Recording Microphone With Noise Cancel And Echo Effect. ৳1,800.00 | Buy Now

Add a Comment

Your email address will not be published.