শিখরী মন্দির শিল্পের এক অপূর্ব নিদর্শন: মাহিলাড়া সরকার মঠ

শিখরী মন্দির শিল্পের এক অপূর্ব নিদর্শনের নাম হল মাহিলাড়া সরকার মঠ। বরিশাল জেলাধীন গৌরনদী উপজেলার মাহিলাড়া গ্রামে এ মঠটি অবস্থিত । গৌরনদী উপজেলা সদর থেকে ঢাকা-বরিশাল মহাসড়ক পথে প্রায় ৬ কি.মি. দক্ষিণ দিকে মাহিলাড়া বাজার । এ বাজার থেকে সড়ক পথে প্রায় ৫০০ মিটার দক্ষিণ দিকে এগিয়ে গেলে পূর্বমুখী একটি পাকা সড়ক । এ পাকা সড়ক পথে ২৫০ মিটার পূর্বদিকে এ মঠটি দেখা যায় । মঠটির দক্ষিণ পাশে ১ টি দিঘি, পূর্বপাশে ১ টি পুকুর এবং পশ্চিম ও উত্তর পাশে পাকা সড়ক রয়েছে।


মানচিত্র: মাহিলাড়া সরকার মঠ।

সরকারের মঠ নামে পরিচিত এ শংকর মঠটি শিখরী মন্দির শিল্পের এক অপূর্ব নিদর্শন। এ মঠটিতে কোন খোদিত শিলালিপি পাওয়া যায়নি। তবে স্থাপত্যিক গঠনশৈলী দেখে অনুমান করা হয়, খ্রিস্টীয় ১৮ শতকে এ মঠটি নির্মিত। আরো অনুমেয়, নবাব আলীবর্দীর আমলে সরকার রূপরাম দাশগুপ্ত এমঠটি নির্মাণ করেন।


ভূ-পৃষ্ঠ থেকে মঠটি প্রায় ২০.২১ মিটার উঁচু । অষ্টভুজাকারে নির্মিত এ মঠের নিচের দিকের প্রতিটি ভুজ বা বাহুর দৈর্ঘ্য ১.৯১ মিটার। এ বাহুগুলো ভূ-পৃষ্ঠ থেকে প্রায় ৬.২ মিটার উপর পর্যন্ত একই দৈর্ঘ্যবিশিষ্ট। এরপর মঠটি ক্রমশ সরু হয়ে উপরের দিকে উঠে গিয়েছে। সরু অংশটি অসংখ্য ধনুক আকারের কার্ণিসের অলঙ্করণ শোভিত হয়ে শিখরে গিয়ে শেষ হয়েছে । এ মঠের অভ্যন্তরে বর্গাকারে নির্মিত একটি ছোট কক্ষ রয়েছে। এ কক্ষটির একমাত্র প্রবেশপথ মঠের পশ্চিম দেয়ালে রয়েছে। সেগমেন্টাল (segmental) খিলানের এ প্রবেশপথটির উপরে অবস্থিত প্যানেলটিতে বেশ কিছু জ্যামিতিক অলঙ্করণ রয়েছে। এরূপ অলঙ্করণ মঠের অন্যান্য দিকেও দেখা যায়। এ মঠটি গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের একটি সংরক্ষিত পুরাকীর্তি হিসেবে প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তরের তত্ত্বাবধানে রয়েছে।


Click for English Version


[লেখক: মো শাহীন আলম ]



Add a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *