সালফার চক্র: সালফার চক্রে মানুষের প্রভাব এবং পরিবেশ দূষণ

সালফার ভৌত পরিবেশে ও জীব পরিবেশে বিভিন্ন যৌগ রূপে বিরাজমান। ভৌত পরিবেশের বায়ুমণ্ডলে গ্যাসীয় হাইড্রোজেন সালফাইড (H2S) এবং সালফার-ডাই-অক্সাইড (SO2) রূপে, অশ্মমণ্ডলের মাটিতে ও বারিমণ্ডলের পানিতে সালফেট (SO4) রূপে এবং জীব পরিবেশে প্রোটিন গঠনকারী জৈব অণু রূপে সালফার পাওয়া যায়। আগ্নেয়গিরির নি:সরণ হল বায়ুমণ্ডলের হাইড্রোজেন সালফাইড এবং সালফার-ডাই-অক্সাইড গ্যাস রূপে প্রাপ্ত সালফারের প্রাকৃতিক উৎস।

সালফার চক্র (sulpher cycle): সাধারণত ভৌত পরিবেশ থেকে জীব পরিবেশে এবং জীব পরিবেশ থেকে ভৌত পরিবেশে সালফারের চক্রাকার প্রবাহকে সালফার চক্র বলা হয়। হাইড্রোজেন সালফাইড এবং সালফার-ডাই-অক্সাইড গ্যাস রূপের সালফার বিশেষ প্রক্রিয়ায় সালফেটে (SO4) রূপান্তরিত হয়। উদ্ভিদ সালফারকে দ্রবীভূত সালফেট আকারে গ্রহণ করে। পরবর্তী পর্যায়ে প্রাণী খাদ্য শৃঙ্খলের মাধ্যমে উদ্ভিদ থেকে সালফার গ্রহণ করে। আবার, বিশেষ প্রক্রিয়ার মাধ্যমে উদ্ভিদ ও প্রাণীর দেহ থেকে হাইড্রোজেন সালফাইড এবং সালফার-ডাই-অক্সাইড গ্যাস রূপে সালফার বায়ুমণ্ডলে ফিরে যায়। উদ্ভিদ পুনরায় একই প্রক্রিয়ায় সালফেট গ্রহণ করে। এরূপে ভৌত পরিবেশ থেকে জীব পরিবেশে এবং জীব পরিবেশ থেকে ভৌত পরিবেশে সালফারের চক্রাকার প্রবাহ চলতে থাকে।

চিত্র: সালফার চক্র।

সালফার চক্রের পদ্ধতি (the mechanism of sulpher cycle): ভৌত পরিবেশ থেকে জীব পরিবেশে সালফারের অন্তর্প্রবাহ এবং জীব পরিবেশ থেকে ভৌত পরিবেশে সালফারের বহির্প্রবাহের মাধ্যমে সালফার চক্র সম্পন্ন হয়। তাই সালফার চক্রের পদ্ধতিকে দুটি সালফার প্রবাহে ভাগ করে নিন্মে ব্যাখ্যা করা হল।

১. ভৌত পরিবেশ থেকে জীব পরিবেশে সালফারের অন্তর্প্রবাহ: ভৌত পরিবেশের বায়ুমণ্ডলে হাইড্রোজেন সালফাইড (H2S) এবং সালফার-ডাই-অক্সাইড (SO2) গ্যাস রূপের সালফার বিরাজ করে। বৃষ্টির সময় বিশেষ রাসায়নিক বিক্রিয়ার সাহায্যে বায়ুমণ্ডলের হাইড্রোজেন সালফাইড এবং সালফার-ডাই-অক্সাইড গ্যাস সালফেটে (SO4) ও সালফিউরিক এসিডে (H2SO4) রূপান্তরিত হয়। রূপান্তরিত এ সালফেট ও সালফিউরিক এসিড ভূ-পৃষ্ঠের মাটি ও পানির সাথে দ্রবীভূত অবস্থায় থাকে। উদ্ভিদ মাটি থেকে সালফারকে দ্রবীভূত সালফেট রূপে গ্রহণ করে জৈব অণুর সংগঠক হিসেবে নিজ দেহে জমা করে। পরে প্রাণী খাদ্য শৃঙ্খলের মাধ্যমে উদ্ভিদ থেকে এ সালফার গ্রহণ করে।

২. জীব পরিবেশ থেকে ভৌত পরিবেশে সালফারের বহির্প্রবাহ: প্রাণী মলের মাধ্যমে সালফার পরিবেশে ত্যাগ করে থাকে। ব্যাকটেরিয়া ও ছত্রাক প্রাণীর মল, মূত্র এবং উদ্ভিদ ও প্রাণীর মৃত দেহাবশেষে বিদ্যমান সালফার থেকে সালফেট উৎপাদন করে। উৎপাদিত সালফেটের কিছু অংশ উদ্ভিদ পুনরায় গ্রহণ করে। সালফেট থেকে সালফারের অবশিষ্ট অংশ হাইড্রোজেন সালফাইড এবং সালফার-ডাই-অক্সাইড গ্যাস রূপে বায়ুমণ্ডলে প্রবাহিত হয়।

উপর্যুক্ত প্রাকৃতিক পদ্ধতি ছাড়াও কয়লা, পেট্রোলিয়াম ও প্রাকৃতিক গ্যাসের মত জীবাশ্ম জ্বালানী দহনের ফলে হাইড্রোজেন সালফাইড এবং সালফার-ডাই-অক্সাইড গ্যাস রূপে প্রচুর সালফার বায়ুমণ্ডলে প্রবাহিত হয়। এছাড়া কৃষি কাজে সালফার সার প্রয়োগে জীব পরিবেশে প্রচুর সালফার প্রবাহিত হয়।

সূতরাং, সালফার মৌল বিভিন্ন রূপে বায়ুমণ্ডল থেকে ভূ-পৃষ্ঠের মাটি ও পানি, মাটি থেকে উদ্ভিদে, উদ্ভিদ থেকে প্রাণীতে এবং মাটি, পানি, উদ্ভিদ ও প্রাণী থেকে পুনরায় বায়মণ্ডলে প্রবাহের মাধ্যমে সালফার চক্র চলন্ত থাকে। সালফারের এ প্রাকৃতিক চক্র কখনও থেমে যায় না।

সালফার চক্রে মানুষের প্রভাব এবং পরিবেশ দূষণ: সালফার চক্র একটি চলন্ত প্রাকৃতিক প্রক্রিয়া। পরিবেশে সালফারের ভারসাম্য নির্ভর করে ভৌত পরিবেশ থেকে জীব পরিবেশে হাইড্রোজেন সালফাইড এবং সালফার-ডাই-অক্সাইড গ্রহণ বা ব্যবহার এবং জীব পরিবেশ থেকে ভৌত পরিবেশে হাইড্রোজেন সালফাইড এবং সালফার-ডাই-অক্সাইডের নি:সরণের সুষম আন্ত:ক্রিয়ার উপর। মানুষের অপরিকল্পিত কাজের কারণে  বায়ুমণ্ডলে হাইড্রোজেন সালফাইড এবং সালফার-ডাই-অক্সাইডের নি:সরণের পরিমাণ বেড়ে যায়। অপরদিকে হাইড্রোজেন সালফাইড এবং সালফার-ডাই-অক্সাইডের গ্রহণ কিংবা ব্যবহারের পরিমাণ কমে যায়। ফলে বায়ুমণ্ডলে হাইড্রোজেন সালফাইড এবং সালফার-ডাই-অক্সাইডের পরিমাণ ক্রমাগত হারে বাড়ে। বায়ুদূষণ এবং সালফিউরিক এসিড বৃষ্টি বৃদ্ধির অন্যতম প্রধান কারণ হল বায়ুমণ্ডলে হাইড্রোজেন সালফাইড এবং সালফার-ডাই-অক্সাইড গ্যাস পরিমাণ বৃদ্ধি পাওয়া। নিম্নলিখিত মানুষের অপরিকল্পিত কাজের কারণে সালফার চক্রে ভারসাম্যহীনতা ও পরিবেশ দূষণ হয়।

ক. খনি থেকে উত্তোলিত কয়লা, পেট্রোলিয়াম, প্রাকৃতিক গ্যাস প্রভৃতি জীবাশ্ম জ্বালানীর ক্রমবর্ধমান হারে ব্যবহার। এ জীবাশ্ম জ্বালানীর দহনের কারণে কার্বন-ডাই-অক্সাইড গ্যাসের মত প্রচুর পরিমাণে হাইড্রোজেন সালফাইড এবং সালফার-ডাই-অক্সাইড বায়ুমণ্ডলে নি:সরিত হয়।

খ. নির্বিচারে বনভূমির উদ্ভিদ বা অরণ্য নিধন করে সবুজ আচ্ছাদনের বিলুপ্ত করা। ফলে উদ্ভিদ বা অরণ্য কর্তৃক হাইড্রোজেন সালফাইড এবং সালফার-ডাই-অক্সাইড থেকে সৃষ্ট সালফেট গ্রহণ বা ব্যবহার পরিমাণ হৃাস পায়।

গ. খাদ্য উৎপাদন বৃদ্ধির জন্য কৃষি জমিতে রাসায়নিক সার হিসেবে সালফার প্রয়োগ করা। ফলে প্রচুর সালফার জমির মাটিতে মিশ্রিত হয়। মাটিতে মিশ্রিত এ সালফার বৃষ্টির পানির সাথে বিক্রিয়া করে সালফিউরিক এসিড রূপে খাল, পুকুর, নদী প্রভৃতি জলাশয়ে পতিত হয়। ফলে পানি দূষণ ভয়াবহ আকার ধারণ করে।


তথ্যসূত্র: ১. পাল, গৌতম, পরিবেশ ও দূষণ, দাশগুপ্ত অ্যান্ড কোম্পানি প্রাইভেট লি., কলকাতা, ১৯৯৯, পৃষ্ঠা ৭০-৭২। 


লেখক: মো. শাহীন আলম


 

Add a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *