Walther Penck – এর ভূমিরূপ উন্নয়নের মডেল এবং এর ব্যাখ্যা

জার্মান ভূতত্ত্ববিদ ওয়ালথার পেঙ্ক [Walther Penck] ১৯২৪ সালে Die Morphologische Analyse নামক পুস্তকটি রচনা করেন। তাঁর রচিত এ পুস্তকে ভূমিরূপ (landform) উন্নয়ন সম্পর্কে একটি মডেলের মাধ্যমে বিস্তারিত ব্যাখ্যা প্রদান করেন। প্রখ্যাত ভূতত্ত্ববিদ উইলিয়াম মরিস ডেভিস [William Morris Davis] – এর সাথে ভূমিরূপ সম্পর্কে পেঙ্ক-এর মতের ভিন্নতা ছিল। উভয় ভূতত্ত্ববিদের ভূমিরূপ সম্পর্কিত ব্যাখ্যার উদ্দেশ্যগুলােও ভিন্ন ছিল। ডেভিসের ভূমিরূপ গঠন সম্পর্কিত ধারণাগুলাের প্রাথমিক উদ্দেশ্য হল ভূ-পৃষ্ঠের উপরিভাগের বৈশিষ্ট্যসমূহ বর্ণনা করা। অপরদিকে পেঙ্ক তাঁর ভূমিরূপ সম্পর্কিত নিজস্ব ধারণাটি একজন ভূতত্ত্ববিদের দৃষ্টিকোণ থেকে উপস্থাপন করেন। পেঙ্ক-এর ধারণার মধ্যে কোন অঞ্চলের ভূমির উপর প্রভাব সৃষ্টিকারী অভ্যন্তরীণ শক্তিগুলাের ব্যাখ্যা বেশি পরিলক্ষিত হয়েছে। ডেভিসের মতে, ক্ষয় কাজের পর্যায়ে ভূমির ঊর্ধ্বে উন্নয়ন সাধিত হবে। তবে পেঙ্কের মতে, ঊর্ধ্বে উন্নয়ন সম্পূর্ণ ক্ষয় কাজের মধ্যেই সাধিত হয়।

ঊর্ধ্বে উন্নয়নের হার: পেঙ্ক – এর মতে, ভূমির ঊর্ধ্বে উন্নয়নের হার প্রধানত তিন প্রকার। যথা –

ক) উন্নয়নের দ্রুততর বিকাশ (Accelerated Development of Uplift)

খ) উন্নয়নের সম বিকাশ (Uniform Development of Uplift)

গ) উন্নয়নের ধীর বিকাশ (Declining Development of Uplift)

অর্থাৎ তাঁর মতে, ভূমিতে একদিকে যখন ক্ষয় কাজ হয়, তখন অন্যদিকে ঊর্ধ্বে উন্নয়ন সাধিত হয়। এটি প্রথম পর্যায়ে দ্রুত, দ্বিতীয় পর্যায়ে সমভাবে এবং সর্বশেষ পর্যায়ে ধীরে ধীরে বিকাশ লাভ করে। পেঙ্ক মত দেন যে, উপত্যকা ঢালু হওয়ার বৈশিষ্ট্য দিয়ে অভ্যন্তরীণ ও বাহ্যিক প্রক্রিয়াগুলাের আপেক্ষিক গুরুত্ব অনুভব করা যায়। তিনি মনে করেন যে, কোন অঞ্চলের ভূমি ঢালু হওয়া প্রধানত ক্রমোচ্চতার মতই এবং এগুলোর বৈশিষ্ট্য ক্ষয় কাজের প্রকটতার উপরে নির্ভর করে। পেঙ্কের মতে, যেখানে যে রকম ভূমি ঊর্ধ্বে উন্নয়ন হয়, তার উপর ভূমির ঢালু কেমন হবে তা নির্ভর করে।

উন্নয়নের দ্রুততর বিকাশ: যেখানে ভূমি ঊর্ধ্বে উত্থিত হওয়া খুব দ্রুত হয়, সেখানে ভূমি উত্তল (convex) ধরনের ঢাল হবে। উত্তল ঢাল বলতে ভূমির ক্ষয়ীভবনের ক্রমবর্ধমান প্রগাঢ় বিকাশ বুঝায়। ক্রমবর্ধমান উত্থানের পাশে উপরের দিকে ভূমির উত্তল ঢাল সৃষ্টি হয়।

চিত্র – ১ : উত্তল ঢাল।

উন্নয়নের সম বিকাশ: যেখানে ভূমি ঊর্ধ্বে উত্থিত হওয়া সমভাবে হয়, সেখানে ভূমির সুষম (uniform) বা সােজা (Straight) ধরনের ঢাল হবে। সুষম ঢালগুলাে ভূমি ক্ষয়ীভবনের অবিরত প্রগাঢ় বিকাশ নির্দেশ করে। ভূমির সুষম বা সােজা ঢালগুলাে দেখে বুঝা যাবে যে, নদীর নিম্ন ক্ষয় অবিরতভাবে চলে ছিল।

চিত্র – ২ : সুষম ঢাল।

উন্নয়নের ধীর বিকাশ: যেখানে ভূমি ঊর্ধ্বে উন্নয়ন খুব আস্তে আস্তে হয়েছে, সেখানে ভূমির অবতল (concave) ঢাল সৃষ্টি হবে। অবতল ঢাল বলতে ভূমির ক্ষয়ীভবনের ক্রমহ্রাসমান প্রগাঢ় বা ক্ষয়শীল বিকাশ বুঝায়। অবতল ঢাল দেখে বুঝা যাবে যে, পরীখার ক্ষয়শীল হার চলে ছিল।

চিত্র – ৩ : অবতল ঢাল।

ক্ষয় কাজের নিয়ামক: ভূ-তাত্ত্বিক আলােড়ন ছাড়াও অন্যান্য নিয়ামক ভূমির ক্ষয় কাজকে প্রভাবিত করে। এক্ষেত্রে পেঙ্ক অভ্যন্তরীণ শক্তিগুলােকে বেশি গুরুত্ব দিয়েছেন। তিনি ভূ-পৃষ্ঠকে অভ্যন্তরীণ ও বাহ্যিক শক্তিগুলাের দ্বন্দের বলয় (zone of conflict) হিসেবে বিবেচনা করেছেন। তিনি মনে করতেন যে, অভ্যন্তরীণ ও বাহ্যিক শক্তিগুলাের প্রগাঢ়তা ভূমিরূপে প্রতিফলিত হয়। পেঙ্কের  মত দেন যে, ভূমির ঢালু স্থান শিলার গঠন বৈশিষ্ট্য প্রকাশ করে। উপত্যকার ঢালু জায়গা আবহাওয়া, শিলার গঠন, শিলার আকৃতি, বিচূর্ণীভবন (weathering), বহন প্রক্রিয়া এবং আন্দোলনের প্রকৃতি প্রভৃতি বিভিন্ন উপাদান দ্বারা প্রভাবিত হয়।

ঢালের পশ্চাদ অপসরণ: ভূমির ঢালু স্থানের অগ্রসরতাকে কেন্দ্র করে পেঙ্ক গুরুত্বপূর্ণ মত প্রকাশ করেন যে, কোন উপত্যকার ঢালু স্থানের দুটি বৈশিষ্ট্য রয়েছে। উপরিভাগ তুলনামূলক খাড়া এবং নিম্নভাগ তুলনামূলক মৃদু । এ উভয় ঢাল সাধারণত একটি স্পষ্ট কোণ সৃষ্টি করে পরস্পর মিলিত হয়। মিলনস্থলের কৌণিক মাত্রা নির্ভর করে নিন্মোক্ত ২টি বিষয়ের উপর – 

(১) ঐ অঞ্চলের উপর দিয়ে প্রবাহিত পদার্থ এবং তাদের আকৃতি; ও

(২) পদার্থগুলাে বহনের উপযোগী পানির পরিমাণ।

পেঙ্কের মতে, আর্দ্র অঞ্চলের তুলনায় শুষ্ক অঞ্চলে মৃদু ঢাল বেশি খাড়াই হয়। খাড়াই ঢালের মূল কৌণিক অবস্থা অক্ষুন্ন রেখে পশ্চাদ অপসরণ করে। ঢালের পশ্চাদ অপসারণের এরূপ ধারণা পেঙ্ক ও তাঁর অনুসারীদের মধ্যে ব্যাপক সমর্থন লাভ করেন। [সংকলিত] [মো: শাহীন আলম]


সহায়িকা:
১.  Singh, Savindra, Physical Geography, 2009, Prayag Pustak Bhawan, Allahabad.
২. মাহমুদ, কাজী আবুল, ভূগোল কম্প্রিহেনসিভ, ২০০৩, সুজনেষু প্রকাশনী, ঢাকা।


Add a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *