অর্থায়ন এবং অর্থের সময়মূল্য

অর্থায়ন [Financing] বলতে সাধারণত তহবিল (fund) সংগ্রহ এবং ব্যবহার সম্পর্কিত প্রক্রিয়াকে বুঝায়। অর্থায়ন মূলতঃ তহবিল (fund) ব্যবস্থাপনা নিয়ে কাজ করে থাকে। যে কোন কারবারে (deal/business) মেশিনপত্র ক্রয়, কাঁচামাল ক্রয়, শ্রমিকের মজুরি এবং মালামাল প্রস্তুতকরণসহ বিভিন্ন খাতের জন্য বিভিন্ন পরিমাণে তহবিলের প্রয়োজন হয়। আবার প্রস্তুতকৃত মালামাল বিক্রয় করে কারবারের জন্য আরও তহবিল পাওয়া যায়। কারবারের শুরুতে যেমনি বিভিন্ন উৎস (নিজের জমানো অর্থ, ব্যাংক ঋণ প্রভৃতি) থেকে তহবিল সংগ্রহ করা হয়, তেমনি প্রস্তুতকৃত মালামাল বাজারে বিক্রয় করে আরও তহবিল পাওয়া যায়। সুতরাং যে কোন কারবারের উৎপাদন প্রক্রিয়া এবং বাজারজাতকরণ অব্যাহত রাখার জন্য প্রয়োজন অনুযায়ী তহবিল সংগ্রহ  এবং সঠিক ব্যবহার সংক্রান্ত প্রক্রিয়াই হল অর্থায়ন।

অর্থের সময়মূল্য [Time Value of Money] বলতে সাধারণত সময়ের পরিবর্তনের সাথে সাথে অর্থের মূল্য পরিবর্তন হওয়াকে বুঝায়। অর্থাৎ এখনকার ১০০০ টাকা এবং ৫ বছর পরের ১০০০ টাকা সমান মূল্য বহন করে না। এখনকার ১০০০ টাকা অধিকতর মূল্যবান। আর এটাই হল অর্থের সময়মূল্য। অর্থের সময়মূল্যের মূল কারণ হল সুদ (interest) এবং সুদের হার (interest rate)। উদাহরণস্বরূপ, করিম সাহেব রহিম সাহেবের কাছে ১০০০ টাকা পাওনা আছেন। এমতাবস্থায় রহিম সাহেব বলল, ১০০০ টাকা এখন পরিশােধ না করে আগামী ১ বছর পরে পরিশােধ করবেন। অর্থের সময়মূল্য বলে যে, এখনকার ১০০০ টাকা, আর ১ বছর পরের ১০০০ টাকা সমান মূল্য বহন করে না। ধরা যাক, বার্ষিক সুদের হার শতকরা ১০ ভাগ। অর্থাৎ কেউ যদি কোন ব্যাংকে এখন ১০০০ টাকা জমা রাখেন, তবে আগামী বছর ব্যাংক তাকে ১১০০ টাকা দেবে। সুতরাং অর্থের সময়মূল্য অনুযায়ী এখনকার ১০০০ টাকা এবং আগামী বছরের ১১০০ টাকার সমান মূল্য বহন করে।

অর্থের সময়মূল্যের ধারণাটি আমাদের দৈনন্দিন অর্থায়নের ক্ষেত্রে অত্যন্ত প্রয়ােজনীয়। যে কোন কারবার বা ব্যবসায়ে অর্থায়নের ক্ষেত্রে বেশির ভাগ সিদ্ধান্তের সাথে অর্থের সময়মূল্যের ধারণাটি বিশেষভাবে সংশ্লিষ্ট থাকে। তাই অর্থায়নের জন্য অর্থের মেয়াদভিত্তিক বর্তমান এবং ভবিষ্যৎ মূল্য নির্ধারণ করার প্রয়োজন হয়। [সংকলিত]


Financing And Time Value of Money


Add a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *