রেফ্রিজারেটর বা ফ্রিজের আদিকথা: সাধারণ ফ্রিজ ও ডিপ ফ্রিজের পার্থক্য

খাবার ও পানীয় বস্তু কৃত্রিম উপায়ে শীতল করে সংরক্ষণ করার একটি যন্ত্র হল রেফ্রিজারেটর (refrigerator)। এটিকে সংক্ষেপে ফ্রিজ (fridge) বলা হয়। যাকে বাংলা ভাষায় হিমায়ক যন্ত্র বলা হয়ে থাকে। এতে থাকে তাপনিরোধক প্রকোষ্ঠ (compartment) এবং একটি হিট পাম্প (heat pump)। যা ফ্রিজের ভিতর থেকে তাপ বাহিরে বের করে দেয়। ফলে বাহিরের পরিবেশের তাপমাত্রার চেয়ে ফ্রিজের ভিতরের তাপমাত্রা অনেক কম থাকে। নিম্ন তাপমাত্রায় ব্যাকটেরিয়া কম ছড়ায় এবং কম প্রজনন করে। ফলে খাবার ও পানীয় বস্তু খুব সহজে পচে না। ফ্রিজের ভিতর তাপমাত্রা গলনাঙ্কের সামান্য উপরে অবস্থান করে। তবে রেফ্রিজারেটর বা ফ্রিজের দু’টি অংশ বা ভাগ রয়েছে। যথা:

১. সাধারণ ফ্রিজ (normal fridge) ও
২. ডিপ ফ্রিজ (deep fridge) ।

১. সাধারণ ফ্রিজ (normal fridge): এ ফ্রিজের ভিতরে কক্ষ তাপমাত্রা অপেক্ষা বেশ কম তাপমাত্রা সংরক্ষণ করা হয়। সাধারণত এ তাপমাত্রা কয়েক ডিগ্রী সেন্টিগ্রেড থেকে ২০ ডিগ্রী সেন্টিগ্রেড পর্যন্ত হয়ে থাকে। ফলে এতে সংরক্ষিত খাবার, পানীয় বস্তু ও শাকসবজী বেশ কয়েক দিন পর্যন্ত ভাল থাকে। এ ফ্রিজে তরল জাতীয় কোন কিছু রাখলে তা বরফে পরিণত হয় না।

২. ডিপফ্রিজ (deep fridge): এ ফ্রিজের ভিতরে তাপমাত্রা শূন্য ডিগ্রীর নিচে সংরক্ষণ করা হয়। যার ফলে এতে সংরক্ষিত খাবার ও মাছ-মাংস বেশ কয়েক মাস পর্যন্ত ভাল থাকে। এ ফ্রিজে তরল জাতীয় কোন কিছু রাখলে তা বরফে পরিণত হয়।

উল্লেখ্য যে, খাবার ও পানীয় বস্তু শীতল করে সংরক্ষণের প্রথম দিকে বরফ ব্যবহার করা হয়। এক সময় ঘরবাড়িতে খাবার ও পানীয় বস্তু সংরক্ষণে আইসবক্স (icebox)ও ব্যবহৃত হত। খ্রিস্টীয় ১৭৫০ দশকের মধ্যভাগে কৃত্রিম রেফ্রিজারেশন (refrigeration) শুরু করা হয়। খ্রিস্টীয় ১৮০০ সালের প্রথমভাগে তা আরো উন্নত করা হয়। প্রথম কার্যকর জলীয়বাষ্প-কম্প্রেশন রেফ্রিজারেটর সিস্টেম তৈরী করা হয় খ্রিস্টীয় ১৮৩৪ সালে। খ্রিস্টীয় ১৯১৩ সালে ঘরে ব্যবহারের উপযোগী রেফ্রিজারেটর তৈরি করা হয় । ফ্রিজিডেয়ার কোম্পানী খ্রিস্টীয় ১৯২৩ সালে প্রথম স্বয়ংসম্পূর্ণ একক ফ্রিজ তৈরি করে। খ্রিস্টীয় ১৯২০ দশকে ফ্রেয়ন আবিষ্কৃত হয়। পরে খ্রিস্টীয় ১৯৩০ দশকে রেফ্রিজারেটরের বাজার প্রসারিত হতে থাকে। এখন রেফ্রিজারেটর সর্ব সাধারণের নাগালে চলে এসেছে। [সংকলিত]


Refrigerator


 

Add a Comment

Your email address will not be published.